আসছে ‘দূরবীনে প্রেম’

এ.আর.তারেক, দুরবিন ডটকম

‘দূরবীনে প্রেম’ নামটির সাথেই যেন কিছুটা শৈল্পিক ধাঁধা লুকিয়ে আছে। সাম্প্রতি জনপ্রিয় কথাশিল্পী রাজিব সরকারের কাহিনি, সংলাপ, চিত্রনাট্য ও পরিচালনায় ঢাকার উত্তরার শ্যুটিং হাউজে এবং দিয়া বাড়িতে এই নাটকের  শুটিং শেষ হল।

দূরবীনে প্রেম নাটকটিতে মূলদু’টি চরিত্রে অভিনয় করছেন  তাহসান খান ও  কাজী নওশাবা আহমেদ।

শেয়াল পণ্ডিত’র ব্যানারে নির্মিত টেলিফিল্মটি প্রযোজনা করেছেন রূম্পা এস চৌধুরী। সিনেমাটোগ্রাফিতে ছিলেন মো. আলাউল বাকী, সহকারী পরিচালক ছিলেন আরিহান খান।

নাটকটির ব্যপারে প্রযোজক রুম্পা এস চৌধুরীর সাথে দুরবিন ডটকমের কথা হলে তিনি জানান সম্পূর্ণ ভিন্ন আঙ্গিকে নাটকটি নির্মাণ করা হয়েছে। অসাধারণ একটি গল্প ও চমৎকার কিছু দৃষ্যায়ণ রয়েছে নাটকটিতে । যা কিনা নিঃসন্দেহে দর্শকদের বিনোদিত করবে। তাছাড়া নাটকটি  দর্শকদের রুচিশীলতার দিক দিয়ে কিছুটা হলেও এগিয়ে থাকবে বলে আমার বিশ্বাস। 

কাহিনি সংক্ষেপ: স্বভাব চরিত্রে আরাফ খুব গোছানো প্রকৃতির এবং বাস্তবিক চিন্তাতে বিশ্বাসী। অন্যদিকে আরাফের স্ত্রী মেধা প্রচণ্ড আবেগি ও কল্পনা প্রবণতায় ভরপুর। আরাফ ও মেধার সাংসারিক জীবন ভালোভাবে কাটলেও, মেধার মনে একটা আক্ষেপ থেকেই যায়। আর তা হলো, সে প্রথমে প্রেম করবে, তারপর বিয়ে করবে। কিন্তু মেধার ইচ্ছাটা অপূর্ণ থেকে যায়। জীবনকে তো আমরা কতভাবেই দেখতে চাই, ঠিক যেমন মেধা দেখতে চাইলো আসলে প্রেমের অনুভূতিটা কি? আর এই ইচ্ছা পূরণেই শুরু হয় নিজেদের ভেতরে এক প্রেম প্রেম খেলা। বলা যেতে পারে প্রেম নিয়ে লুকোচুরি খেলা। ১৪ দিনের শর্ত সাপেক্ষে ব্যাচেলার হয়ে প্রেমের কাহিনি পর্ব শেষ হয় ঠিকই, কিন্তু শুরু হয় এক বিভেদের নতুন পর্ব। কল্পনা ও বাস্তব কি কখনো এক হয়ে, এক পথে চলতে পারে ? চাওয়া পাওয়ার এই ভাবনার মাঝেই আরাফ ও মেধার ভালোবাসা কি এক হয় ? এই নিয়েই দূরবীনে প্রেম।

আগামী ঈদে একটি বেসরকারি চ্যানেলে নাটকটি দেখানো হবে।


সম্পাদক: আবু মুস্তাফিজ

৩/১৯, ব্লক-বি, হুমায়ুন রোড, মোহাম্মদপুর, ঢাকা