রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে কক্সবাজারের উদ্দেশে খালেদা জিয়া

স্টাফ রিপোর্টার, দুরবিন ডটকম:

দীর্ঘদিন পর ঢাকার বাইরে ৪ দিনের সফরে যাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনের জন্য কক্সবাজারের উদ্দেশে সড়কপথে আজ তিনি ঢাকা থেকে রওনা হবেন। ৩১ অক্টোবর ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে।

চেয়ারপারসনের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুনের ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের পরিবারকে সান্ত্বনা দিতে খালেদা জিয়া সেখানে গিয়েছিলেন। এর আগে ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে বৌদ্ধ মন্দির ও বৌদ্ধদের বাড়িঘরে হামলার ঘটনা পরিদর্শনে কক্সবাজারের রামুতে গিয়েছিলেন সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী।

চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এদিকে চেয়ারপারসনের এ সফরকে কেন্দ্র করে ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছেন সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও জেলার নেতারা।

ইতিমধ্যে ঢাকা থেকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু ও মো. শাজাহান ফেনী গেছেন। তারা খালেদা জিয়ার সফর নির্বিঘ্ন করতে সংশ্লিষ্ট জেলার নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করে নানা নির্দেশনা দিচ্ছেন।

দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও চেয়ারপারসনের এ সফর সফল করতে নেতাদের টেলিফোনে নানা নির্দেশনা দিচ্ছেন। প্রশাসন ও চেয়ারপারসনের নিরপত্তাকর্মীদের পাশাপাশি পুরো সফরে ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা খালেদা জিয়ার গাড়িবহরের সার্বিক নিরাপত্তা দেবে।

বিএনপি চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এবিএম আবদুস সাত্তার জানান, সড়কপথে আজ সকাল ১০টায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ঢাকা থেকে রওনা হবেন।

ফেনীতে যাত্রাবিরতি ও চট্টগ্রামে রাত্রিযাপন করে পরদিন কক্সবাজার যাবেন। ৩০ অক্টোবর কক্সবাজারের বালুখালি-১ ও ২, ময়নাগুনা হাকিমপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করবেন। চট্টগ্রামে এসে রাত্রিযাপন করে ৩১ অক্টোবর ঢাকার উদ্দেশে রওনা হবেন সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী।

কুমিল্লায় আ’লীগের পাল্টা কর্মসূচি : কুমিল্লা ব্যুরো জানায়, খালেদা জিয়াকে অভ্যর্থনা জানাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে কুমিল্লার ৮ উপজেলার নেতাকর্মীরা ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছেন। পাল্টা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগও।

জেলার প্রবেশমুখ দাউদকান্দিতে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ উপজেলার টোল প্লাজা, গৌরীপুর, ইলিয়টগঞ্জ, রায়পুর, ঝিংলাতলী, হাসানপুর, বারপাড়া, পেন্নাই, আমিরাবাদ, বিশ্বরোডসহ ১০-১২টি স্থানে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবে।

এ নিয়ে সংঘর্ষের আশঙ্কায় জেলায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। দাউদকান্দি মডেল থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান জানান, যানবাহন চলাচলের স্বার্থে মহাসড়কের কোথাও দলীয় কর্মসূচি পালনের অনুমতি নেই।

দাউদকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ মহাসড়কে মানববন্ধনের যে কর্মসূচি দিয়েছে ওই সিদ্ধান্তে তারা এখনও অনড়। তাই বিএনপির সঙ্গে তাদের সংঘাত না হয় কিংবা মহাসড়কে যানবাহন চলাচলে যেন কোনো বিঘ্ন না ঘটে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

চট্টগ্রামে বিএনপি-ছাত্রদলের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি : চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, চট্টগ্রামে বিএনপি-ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি হয়েছে। শুক্রবার বিকালে বিএনপি-ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে কাজীর দেউড়ি থেকে দলীয় কার্যালয় নাসিমন ভবনের দিকে যাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে।

ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুদ্দিন সালাম মিঠু জানান, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চট্টগ্রাম সফর উপলক্ষে প্রস্তুতি সভায় অংশ নিতে নাসিমন ভবনের দলীয় কার্যালয়ে মিছিলসহকারে যাওয়ার সময় পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এ সময় নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি হয়। তবে এতে কেউ আহত হয়নি।

তবে, নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, এটা তুচ্ছ ঘটনা। এ রকম একটু-আধটু হয়েই থাকে। তিনি বলেন, উৎসবমুখর ও আনন্দঘন পরিবেশে খালেদা জিয়াকে চট্টগ্রামে বরণ করা হবে।

নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেনের সভাপতিত্বে প্রস্তুতি সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান।

অন্যদের মধ্যে ছিলেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা গোলাম আকবর খন্দকার, কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরী, নগর সহসভাপতি আবু সুফিয়ান, সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম প্রমুখ। কোতোয়ালি থানার এসআই গোলাম ফারুক ভূঁইয়া জানান, বিএনপি-ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের মিছিলে পুলিশ বাধা দেয়নি। তারাই মারমুখী ছিল।

বাংলাদেশ সময়: ১১৪৬ ঘন্টা, ২৮  অক্টোবর, ২০১৭/টিআর/দুরবিন ডটকম।

 


সম্পাদক: আবু মুস্তাফিজ

৩/১৯, ব্লক-বি, হুমায়ুন রোড, মোহাম্মদপুর, ঢাকা