শেখ হাসিনার কাছে জাদুর কাঠি: খালেদা

স্টাফ রিপোর্টার, দুরবিন ডটকম:

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা খারিজ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। একই আমলে তার বিরুদ্ধে হওয়া এতিমখানা দুর্নীতি মামলায় আত্মপক্ষ সমর্থনে দেয়া বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘আমার মাঝে মাঝে মনে হয় শেখ হাসিনার কাছে জাদুর কাঠি আছে। সেই কাঠির ছোঁয়ায় তার বিরুদ্ধে দায়ের করা দুর্নীতি, অনিয়ম ও চাঁদাবাজিসহ সব মামলা খারিজ হয়ে গেছে।’

‘আমাদের কাছে তেমন কোনো জাদুর কাঠি নেই। তাই একই সময়ে আমাদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাগুলো একের পর এক সচল হয়েছে। হচ্ছে নতুন নতুন মামলা।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে পুরান ঢাকার বকশীবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ আখতারুজ্জামানের আদালতে আত্মপক্ষ সমর্থনে খালেদা জিয়া এসব কথা বলেন।

সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে গ্রেপ্তার দুই নেত্রীর বিরুদ্ধে করা হয় দুর্নীতির একাধিক মামলা। এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে করা মামলাগুলো আদালতে মীমাংসা হয়ে গেছে এরই মধ্যে। তবে খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের বারবার সময় নেয়া এবং উচ্চ আদালতে স্থগিতাদেশ চেয়ে করা আবেদনের কারণে বিএনপি নেত্রীর মামলাগুলো এখনও শেষ হয়নি।

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলেই করা হয় জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা। ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় এই মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

২০১০ সালের ৫ আগস্ট খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপ-পরিচালক হারুন আর রশীদ। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ খালেদা জিয়াসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়।

মামলায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান ছাড়া অন্য আসামিরা হলেন- মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, জোট সরকারের আমলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

অভিযোগ গঠনের তিন বছরেরও বেশি সময় ধরে চলা মামলাটি এখন শেষ পর্যায়ে। আসামি এবং সাক্ষীদের জেরার পর এখন নিজেকে নির্দোষ প্রমাণে বক্তব্য রাখছেন বিএনপি নেত্রী। আজ দ্বিতীয় দিনের মতো বক্তব্য রাখেন তিনি। তবে প্রথমদিনের মতো আজও  মামলার বিষয়বস্তুর বাইরেই কথা বলেন খালেদা জিয়া।

বিএনপি নেত্রী বলেন, ‘জনগণের মৌলিক মানবিক অধিকার এবং বিচার বিভাগ ও মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে নিশ্চিত করেছি। দেশকে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করার নিরলস প্রয়াসে কখনো বিরতি দেইনি ।’

‘আত্মপ্রচারের উদ্দেশ্যে আমি এসব কথা বলছি না। আমার এই অবস্থান, ভূমিকা ও অবসানের বিনিময়ে বাড়তি কোন সুবিধা বা মর্যাদা দাবি করার কোন অভিপ্রায়ও আমার নেই ।’

এর আগে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা এ দিন আত্মপক্ষ সমর্থন মুলতবির আবেদন করেন। তারা বলেন, আমরা উচ্চ আদালতে মামলাটির আদালত পরিবর্তন চেয়ে আবেদন করেছি। তাই মামলাটির কার্যক্রম মুলতবি রাখা হোক। আদালত তা না মঞ্জুর করে তাকে অসমাপ্ত বক্তব্য দেয়ার সুযোগ দেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫১৪৪ ঘন্টা, ০২  নভেম্বর, ২০১৭/টিআর/দুরবিন ডটকম।


সম্পাদক: আবু মুস্তাফিজ

৩/১৯, ব্লক-বি, হুমায়ুন রোড, মোহাম্মদপুর, ঢাকা